আবৃত্তি-গান-নাটকে স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত


ঢাকা
: মহান স্বাধীনতা দিবসে রাজধানীতে সরব ছিলো সারাদিন সাংস্কৃতিক অঙ্গন। কবিতার দৃপ্ত উচ্চারণ, নৃত্যের তাল, গানের সুর, নাটকের সংলাপে ছিলো দেশের প্রতি ভালোবাসা। স্বাধীনতার জন্য যারা প্রাণ উৎসর্গ করেছেন তাদের স্মরণ করা হয়েছে শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায়।

মহান স্বাধীনতা দিবসে শিল্পকলা একাডেমি আয়োজন করে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালা। একাডেমির আয়োজনে জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে অনিক বোসের নৃত্য পরিচালনায় ‘ধন ধান্য পুষ্প ভরা’, ‘জ্বলে ওঠো বাংলাদেশ, গর্জে ওঠো বাংলাদেশ’ গানের কথায় পরিবেশিত হয় নৃত্য।

লিখন রায়ের নৃত্য পরিচালনায় ‘পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে’, ‘চলো এগিয়ে যাবো, বাধা মানি না’ গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন শিল্পীরা। লায়লা হাসানের নৃত্য পরিচালনায় পরিবেশিত হয় ‘গেরিলা গেরিলা’ এবং ‘রক্তের প্রতিশোধ রক্তেই নেব আমরা’ গানের সঙ্গে।

সমবেত সংগীত পরিবেশন করেন আওয়ামী শিল্পীগোষ্ঠী, আবৃত্তি পরিবেশন করেন শিল্পী সৈয়দ হাসান ইমাম ও ডালিয়া আহমেদ, একক সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী রফিকুল আলম, আইরিন পারভীন, আল আমিন,  নাজিয়া সুলতানা বৃষ্টি, বিউটি, হৈমন্তি রক্ষিত এবং সিদ্দিকুর রহমান।

এর আগে সকালে সাভার স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে আয়োজিত সংস্কৃতিক পরিবেশনার মধ্যে ছিল পুলিশ নারী কল্যাণ শিল্পীদের পরিবেশনায় সমবেত নৃত্য ও সমবেত সংগীত পরিবেশন করে। সত্যেন সেন শিল্পী গোষ্ঠীর সমবেত সংগীত ‘ও পৃথিবী এবার এসে’, ‘ঐ উজ্জ্বল দিন’ এবং ‘বসন্ত বাতাসে সইগো’ গানের কথায় দীপা খন্দকারের পরিচালনায় দিব্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের সমবেত নৃত্য পরিবেশিত হয়। এছাড়াও একক সংগীত পরিবেশন করবেন শিল্পী লুইপা এবং শফি মন্ডল ।

স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে বাংলা একাডেমি বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করে। সকালে বাংলা একাডেমির পক্ষ থেকে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। বিকেলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় একাডেমির রবীন্দ্রচত্বরে। অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী বুলবুল মহলানবীশ, বদরুন্নেসা ডালিয়া এবং বিজন চন্দ্র মিস্ত্রী।

মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে চ্যানেল আই-এর আয়োজনে এবারও অনুষ্ঠিত হলো আইএফআইসি ব্যাংক-চ্যানেল আই ১০ম ‘রং তুলিতে মুক্তিযুদ্ধ’। এদিন সকালে চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে বরেণ্য চিত্রশিল্পী রফিকুন নবীকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়। তার হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন কালি ও কলম সম্পাদক আবুল হাসনাত। অর্থমূল্য তুলে দেন চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপন পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, চ্যানেল আই পরিচালনা পর্ষদ সদস্য জহির উদ্দিন মাহমুদ মামুন, মুকিত মজুমদার বাবু, আবুল বারাক আলভী, বীরেন শোম, সমরজিৎ রায় চৌধুরী, কলামিস্ট কামাল লোহানী, হাসনাত আবদুল হাই, মামুনুর রশীদ প্রমুখ।

সম্মাননা গ্রহণ করে রফিকুন নবী বলেন, আজকের এই বিশেষ দিনে এমন একটি সন্মাননা পেয়ে অনেক ভালো লাগছে। তবে ৭১-এর এই দিনে ২৫ মার্চ রাতের কথা যখন স্মরণ করি তখন আমার সব আনন্দ মাটি হয়ে যায়। কারণ সেই রাতে হারিয়েছি অনেক বন্ধুদের, আমাদের ছাত্র শাহনেওয়াজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষককে।

এর আগে রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ও সুরের ধারার শিল্পীদের পরিবেশনায় ‘ও আমার দেশের মাটি’ গানটি পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় মূল অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে আবৃত্তি করেছেন শিমুল মুস্তাফা, লায়লা তারা নূর এবং সৈয়দ সালাহউদ্দিন জাকী। প্রায় অর্ধশত চিত্রশিল্পী এঁকেছেন মুক্তিযুদ্ধের তাৎপর্যপূণ্য চিত্র। তাদের পাশাপাশি শিশুরাও চিত্র একেঁছে।

এ সময় আবদুল মান্নান ও জহিরের অংকনকৃত দুটি ছবি ক্রয় করেন ছবি সংগ্রাহক সারোয়াত। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন আফজাল হোসেন। দুপুর ২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করেছে চ্যানেল আই।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ‘অশুভের সাথে আপসবিহীন দ্বন্দ্ব চাই’ প্রতিপাদ্যে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও ধানমণ্ডির রবীন্দ্র সরোবর মঞ্চে তিন দিনের স্বাধীনতা উৎসব শেষ করেছে। উৎসবের সমাপনী দিনে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করে ওস্তাদ মোমতাজ আলী খান সঙ্গীত একাডেমি, ভিন্নধারা, দৃষ্টি ও সুরতাল।

একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন সমীর চক্রবর্তী, আবিদা রহমান সেতু, মোহনা দাস ও আসিফ ইকবাল সৌরভ। দলীয় আবৃত্তি পরিবেশন করে ঢাকা স্বরকল্পন, প্রকাশ সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংগঠন, বাকশিল্পাঙ্গন ও স্বরকল্পন আবৃত্তিচক্র। একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন: স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী আশরাফুল আলম, হাসান আরিফ ও ফয়জুল আলম পাপপু। পথনাটক পরিবেশন করে: নাট্যযোদ্ধা ও নাট্যদল। দলীয় নৃত্য পরিবেশন করে বহ্নিশিখা ও নৃত্যাক্ষ। শিশু কিশোর পরিবেশনা ছিল খেলাঘর ও মৈত্রী শিশুদলের।

ধানমণ্ডির রবীন্দ্র সরোবর মঞ্চে দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করে ক্রান্তি শিল্পী গোষ্ঠী, আনন্দন ও নন্দন। একক গান পরিবেশন করেন তিমির নন্দী, অলক দাশগুপ্ত, পল্লব গোমেজ, মাফিদা আক্তার মালা, শ্রাবণী গুহ রায় ও মারুফ হোসেন। দলীয় আবৃত্তি পরিবেশন করে স্রোত আবৃত্তি সংসদ, স্বনন টিএসসি, ত্রিলোক বাচিক পাঠশালা।

একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন গোলাম সারোয়ার, বলায়েত হোসেন, রফিকুল ইসলাম ও নায়লা তারান্নুম চৌধুরী কাকলি। পথনাটক পরিবেশন করে সুবচন নাট্য সংসদ ও শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্র। দলীয় নৃত্য পরিবেশন করে নৃত্যজন ও বেণুকা ললিতকলা কেন্দ্র। শিশু সংগঠন পরিবেশনায় মন্দিরা সাংস্কৃতিক পাঠশালা ও ঋদ্ধস্বর।

Credit – Banglanews24

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *